অনলাইনে আয় করুনআউটসোর্সিংএসইওফ্রিল্যান্সিং

সহজে অনলাইনে আয় করার যত উপায়

অনলাইন বা  ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় করার জন্য, আমাদের হাতে অনেক গুলো উপায় রয়েছে। যা আমাদের  প্রায় সবারই কম বেশি এই সকল বিষয়ে ধারণা আছে আবার কারো কারো ধারণা নাই বললেই চলে। তাই, অনলাইন থেকে টাকা আয়ের আপনার জন্যও অনেক পথ খোলা রয়েছে। শুধু প্রয়োজন, আপনার মধ্যে প্রবল ইচ্ছা, কিছু সাধারণ কৌশল এবং দক্ষতা।
আমরা যদি অনলাইন থেকে টাকা উপার্জনের উপায় খুজি তাহলে আমাদের কিছু বিষয়ে ধারণা রাখা খুব জরুরি। কারণ  অনলাইন থেকে টাকা আয় করা অনেক মাধ্যম আছে এটা যেমন ১০০% সত্য। ঠিক তেমনি মিথ্যা বা জালি মাধ্যমও রয়েছে। এইসব মিথ্যার ফাদে বেশিভাগ ছাত্ররা পরে । যারা অনলাইন জগতে নতুন আসে, এইসব বিষয়ে ধারণা কম। এই সব মিথ্যার ফাদে পরে কেবল মাত্র সময় নস্ট হয়। এবং টাকা দেওয়ার নামে প্রতারণা শিকার হয়।
তবে, ইন্টারনেটে টাকা উর্পাজনের যেসব নিশ্চিত বা জেনুইন উপায় রয়েছে, সেগুলো যদি আপনি পূর্ণ ধারণা নিয়ে  সঠিক ভাবে ব্যবহার করতে পারে তাহলে বিশ্বাস করুন, আপনি কিছু দিনের মধ্যে এত টাকা  আয় করতে পারবেন যা আপনি অন্য কোন কাজ করার প্রয়োজন হবে না।
এই আর্টিকেলটির মাধ্যের আমি আপনাদের সাথে  ইন্টারনেট থেকে টাকা আয় এমন কিছু  উপায় শেয়ার করবো, যেগুলো সঠিক ব্যবহার করলে আপনি কিছু দিনের মধ্যেই ভালো পরিমাণের টাকা আয় করতে পারবেন।

অনলাইনে আয় করার উপায়গুলো

অনলাইনে আয় করার এই উপায় গুলোর থেকে আপনার পছন্দ মত যেকোনো পদ্ধতি বেছে নিতে পারেন।

আর্টিকেল রাইটিং

আপনি কি ভাল টাইপিং জানেন। আপনি ইংরেজিতে দক্ষ।  আপনার লেখালেখি করতে ভাল লাগে। তাহলে আপনি আর্টিকেল রাইটিং পেশাটি বেছে নিতে পারেন। এখানে কাজ হল ক্লায়েন্ট আপনাকে একটা টপিক দিবে আপনাকে ওই টপিক নিয়ে নির্দিষ্ট শব্দের একটা আর্টিকেল লিখে ক্লায়েন্ট কে দিবেন।
অথবা, বিভিন্ন ওয়েবপেজ আছে যেখানে আপনি আপনার লেখা জমা দিবেন। তারপর লেখা কারো পছন্দ হলে বা দরকার হলে আপনার কাছ থেকে কিনে নিবেন।
এছারাও এই পেশার আরও অনেক কাজ আছে।
ইনকামঃ এই পেশায় কাজ করে আপনি মাসে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকার মত আয় করতে পারেন। এর থেকে কমও করতে পারেন বা বেশিও করতে পারেন। সেটা নির্ভর করবে আপনার কাজের উপর।

গ্রাফিক্স ডিজাইন

আপনার মধ্যে যদি ক্রিয়েটিভিটি থাকে। আপনার যদি নতুন নতুন কিছু ডিজাইন করতে ভাল লাগে তাহলে এই পেশাটি বেছে নিন। গ্রাফিক্স ডিজাইন আপনাকে শিখতে হবে। যদি আপনি ভাল ভাবে এই কাজটা শিখতে পারেন তাহলে অনেক কাজ পাবেন গ্রাফিক্স ডিজাইনের।
বিভিন্ন মার্কেট প্লেসে অনেক কাজ পাবেন। যেমনঃ লোগো ডিজাইন, ফটো ইফেক্ট, বিভিন্ন গ্রাফিক্স বানানো ইত্যাদি।
কিছু মার্কেট প্লেস হল, Upwork, Freelancer, Fiverr ইত্যাদি।
ইনকামঃ এই কাজ করে  আপনি মাসে ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকার মত আয় করতে পারবেন।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট দুইটা আলাদা আলাদা কাজ। আপনি শুধু একটা শিখে কাজ করতে পারেন। তবে দুইটা শিখতে পারলে খুব ভাল। এটা শেখা তুলনামূলক ভাবে একটু কঠিন। তবে আপনি যদি এটা শিখতে পারেন তাহলে আপনি অনেক কাজ পাবেন। ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট  এর চাহিদা অনেক বেশি। আপনার ক্যারিয়ার হিসেভে আপনি এই পেশা বেছে নিতে পারেন।
এটা নিয়ে একটা কোর্স করতে পারলে ভাল হয়। তবে আপনি এটা ঘরে বসে google ও YouTube এর বিভিন্ন টিউটোরিয়াল দেখে শিখতে পারেন।
অনলাইনে অফলাইনে দুই ভাবেই করতে পারেন এই কাজ।
ইনকামঃ এটাতে ইনকাম অনেক বেশি। এই পেশায় আপনি মাসে ২০ হাজার থেকে ১ লাখ এর মত ইনকাম করতে পারবেন।

অনলাইন মার্কেটিং

আপনার বিভিন্ন স্যোসাল সাইটে একাউন্ট আছে। আপনি বিভিন্ন সাইটে গুরাঘুরি করতে ভাল লাগে। তাহলে আপনি মার্কেটিং এর কাজ শিখতে পারেন। মার্কেটিং এর বিভিন্ন কাজ আছে।
যেমনঃ

  • সোশাল মিডিয়া মার্কেটিং (Social Media Marketing)
  • ইমেইল মার্কেটিং (Email Marketing)
  • অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing)
এই কাজ গুলা আপনি কোর্স করে করতে পারেন। বা ঘরে বসে টিউটোরিয়াল দেখে শিখতে পারেন। এখন এই কাজের চাহিদা অনেক। এটা আপনি ক্যারিয়ার হিসেভে নিতে পারেন।
ইনকামঃ এটা করে আপনি মাসে ৩০ থেকে ৬০ হাজারের মত আয় করতে পারেন।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও)

এই কাজটা খুব পপুলার। আমি নিজেও এই কাজটা করি। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে হলে আপনাকে ভাল ভাবে ইন্টারনেট ব্যাবহার করা শিখতে হবে। ইন্টারনেত নিয়ে ঘাটাঘাটি করতে হবে। দিন দিন এই কাজের চাহিদা বারছে।এর চাহিদা ভবিষ্যৎ এ ও অনেক থাকবে বলে আশা করা যায়।এই কাজ আপনি খুন কম সময়ে শিখতে পারবেন। এই ব্লগে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন নিয়ে টিউটোরিয়াল লিখতেছি সেগুলা দেখতে পারেন।বিভিন্ন মার্কেট প্লেসে অনেক কাজ পাবেন। Upwork, Freelancer, Fiverr এ অনেক চাহিদা আছে। তাই আমি আপনাকে এইটা শেখার জন্য সাজেশন দিব।
এটার জন্য কোর্স করতে পারেন। বা ঘরে বসে টিউটোরিয়াল দেখে শিখতে পারেন।
ইনকামঃ এটা করে আপনি মাসে ৩০ থেকে ৮০ হাজার ইনকাম করতে পারবেন।
এতক্ষন যে কাজ গুলা নিয়ে আলোচনা করলাম এই গুলা হল প্রফেশনাল লেভেল বা উচ্চ লেভেল এর কাজ। আপনি যেকোন একটা কাজ ভাল ভাবে শিখতে পারলে আপনি অনেক ইনকাম করতে পারবেন। এটা নিজের ক্যারিয়ার হিসেভে নিতে পারেন।

এছারাও, চাকরী বা লেখাপড়ার অবসর সময় এগুলা করে বাড়তি আয় করতে পারবেন।এগুলা ছারাও অনলাইনে আয় করার আরও অনেক উপায় আছে। যেহেতু এই মাত্র যে কাজ গুলা নিয়ে আলচনা করলাম এইগুলা শেখা লাগবে, যাদের শেখার সময় নেই বা কঠিন মনে হচ্ছে তারা অন্য সহজ উপায়ে আয় করতে পারেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং

এফিলিয়েট মার্কেটিং  “জনপ্রিয় অনলাইনে আয়ের মাধ্যম গুলো মধ্যে একটি। এফিলিয়েট মার্কেটিং হল এমন একটি মার্কেটিং প্রক্রিয়া যা মাধ্যমে আপনি অন্য কোন সংস্থার বা কোম্পানি কোন পণ্য অনলাইনে প্রচার বা প্রচারণার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা। আপনি আপনার ওয়েবসাইট,ব্লগ, ইউটিউব চ্যানেল বা সোশ্যাল মাডিয়া page / group এর মাধ্যমে আপনার পণ্য বা প্রোডাক্ট এর সার্ভিস গুলো অনলাইন প্রমোশন বা প্রচার করতে পারেন। এবং, যদি কেউ আপনার প্রচারিত “এফিলিয়েট লিঙ্ক”এর মাধ্যমে অনলাইনে কোন পণ্য বা প্রোডাক্ট ক্রয় করে, তাহলে আপনাকে ঐ কোম্পানি পণ্য sell হওয়ার একটি অংশ আপনাকে কমিশন হিসেবে দেওয়া হবে।

“এফিলিয়েট লিঙ্ক” অথাৎ “URL link address” আপনা যে কোম্পানির প্রোডাক্ট প্রচার করবেন, আপনাকে ঐ কোম্পানি পক্ষ থেকে ইউআরএল টি দেওয়া হবে। এবং, ঐ ইউআরএলটি আপনি প্রচার করতে পারবেন। আর কোম্পানির প্রোডাক্টটির ঐ link টি মাধ্যমে লোকেরা সরাসরি  অনলাইনের পণ্যটি কিনতে পারবে। amazon, flipkart, snapdeal মতো অনেক গুলো ই-কর্মাস ওয়েবসাাইট রয়েছে, যার পণ্যগুলো আপনি এফিলিয়েট মার্কেটিং প্রোগ্রাম মাধ্যমে প্রচার করতে পারেন। ই- কর্মাস ওয়েবসাইট ছাড়াও ইন্টারনেটে বিভিন্ন ধরণের সংস্থা রয়েছে। উদাহারণস্বরুপ, ডোমেন এবং হোস্টিং ওয়েবসাইটের থিমস, প্লাগিংনস, বুক এবং ৯০% ইন্টারনেটে সংস্থাগুলো এফিলিয়েট প্রোগ্রাম ব্যবহার করে থাকে।অতএব,আপনি আপনার ব্লগ,ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেলের বিষয় বিত্তিক বা বিষয় সর্ম্পকিত ঐ সকল এফিলিয়েট প্রোগ্রাম খুঁজে পেতে পারেন এবং তারপরে ভিডিও বা আর্টিকেলের মাধ্যমে প্রচার করতে পারেন।

সিপিএ মার্কেটিং

আপনি সিপিএ মার্কেটিং করে টাকা আয় করতে পারেন। সিপিএ (CPA) এর মানে হল কস্ট পার অ্যাকশন (Cost Per Action)।

যেকোন ধরনের অ্যাকশন যেমন, কিছু ডাউনলোড করা, রেজিষ্ট্রেশন করা, কোন কোম্পানি কে তাদের টার্গেটেড ট্রাফিক এনে দেওয়া, বা কোন পণ্য বিক্রি করাই সিপিএ মার্কেটিং এর কাজ।

ধরুন কোন কোম্পানি আপনাকে বললো কোন একটি দেশের মানুষদের তাদের কোম্পানিতে রেজিষ্ট্রেশন করাতে হবে।

এখন সেই দেশের যত মানুষ যদি সেই কোম্পানিতে রেজিষ্ট্রেশন করে ততো জনের জন্য আপনি নির্দিষ্ট পরিমাণে টাকা পাবেন। আবার ধরুন আপনি কোন একটা কোম্পানির একটি পণ্য বিক্রি করে দিলেন, এর বিনিময়ে আপনি টাকা পাবেন।

শেষ কথা

শেষে এটাই বলবো যে, দিনে দিনে যেভাবে অনলাইন ইনকামের সুযোগ অধিক বেশি বেড়ে গেছে। এবং যদি আপনার মধ্যে বিশেষ কিছু দক্ষতা থাকে, তাহলে অবশ্যই অনলাইন থেকে ইনকাম করার সুযোগ আপনার  কাছেও থাকবে। এই সুযোগটাই কাজে লাগান।
জায়গায় জায়গায় চাকরি খুজেঁ সময় নষ্ট না করে হতাশ হওয়ার থেকে বা অফিসের বস থেকে গালি, অসন্তুষ্টি কর কথা শুনার থেকে। আপনি ঘরে বসে নিজে নিজে কাজ করে স্বাধীন ভাবে কাজ করে টাকা আয় করুন ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button